একদিনের জন্য রংপুর সিটি মেয়র এসএসসি পরীক্ষার্থী বৈশাখী

নিজস্ব সংবাদদাতা:
রংপুর সিটি মেয়রের প্রতীকী দায়িত্ব পালনের মধ্যদিয়ে এক বিরল অভিজ্ঞতা অর্জন করল এসএসসি পরীক্ষার্থী বৈশাখী। এ সময় সিটি মেয়র মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা ফুল দিয়ে বৈশাখীকে স্বাগত জানান এবং প্রতীকী মেয়র হিসেবে বৈশাখীকে তার টিমের সদস্যদের সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দেন।

পরিচয়পর্ব শেষে মেয়র সিটি করপোরেশনের ১৮টি বিভাগ এবং প্রধান প্রধান কাজ এবং প্রতিদিনের কাজ সম্পর্কে বৈশাখীকে অবহিত করেন। এরপর বৈশাখী মেয়রের সঙ্গে প্রতিদিনের কাজে অংশগ্রহণ করেন।

এ সময় বৈশাখী খেয়াল করেন একজন মেয়র কীভাবে কাজ করেন এবং কীভাবে নেতৃত্বের প্রকাশ ঘটান; কীভাকে তিনি বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনা করেন, কীভাবে বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার লোকজনের সঙ্গে আলোচনা করেন এবং কীভাবে সিদ্ধান্ত দেন। দাপ্তরিক কাজ শেষে বৈশাখী এবং মেয়র তাদের অভিজ্ঞতা বিনিময় করেন।

আন্তর্জাতিক কন্যাশিশু দিবস উদযাপনের অংশ হিসেবে প্ল্যান ইন্টারন্যাশনাল প্রতি বছর বাংলাদেশসহ বিশ্বব্যাপী গার্লস টেকওভার নামক বিশেষ ক্যাম্পেইনের আয়োজন করে। গার্লস টেকওভারের উদ্দেশ্য হলো- কিশোরী ও যুবা নারীদের মধ্যে উচ্চাকাঙ্ক্ষী হওয়ার স্বপ্ন জাগিয়ে তোলা এবং তাদের মাঝে বিশ্বাস স্থাপন করা যে, তারা স্বপ্ন দেখতে এবং নেতৃত্বদানে পারদর্শী এবং স্বাধীন।

গার্লস টেকওভারের অংশ হিসেবে বৈশাখী প্রতীকী হিসেবে একদিনের জন্য রংপুর সিটি করপোরেশনের মেয়রের দায়িত্ব পালন করেন।

কন্যাশিশুদের ক্ষমতায়নের জন্য এ ধরনের একটি গুরুত্বপূর্ণ কাজ করার জন্য প্ল্যান ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশকে ধন্যবাদ জানিয়ে বৈশাখী বলেন, প্রতীকীভাবে মেয়রের ভূমিকা পালন করায় আমার জীবনে একটি নতুন স্বপ্ন তৈরি হয়েছে। আমি সিটি করপোরেশনের বিভিন্ন বিভাগ সম্পর্কে এবং এ বিভাগগুলো কীভাবে জনগণের চাহিদা পূরণের লক্ষ্যে কাজ করে তা জানতে পেরেছি।

কন্যাশিশুদের অধিকার রক্ষায় কাজ করা বৈশাখীর কাছে নতুন বিষয় নয়। তার এলাকায় মেয়েরা যাতে অধিকার পায় সেই বিষয়ে বৈশাখী কাজ করে যাচ্ছে। বৈশাখী বাল্যবিবাহ বন্ধে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে। সে তার এলাকায় ৫টি বাল্যবিবাহ বন্ধ করেছে।

করোনা মহামারি প্রতিরোধে এলাকার জনগণের মধ্যে মাস্ক বিতরণ করেছে এবং করোনা সংক্রমণ প্রতিরোধে বিভিন্ন তথ্য সরবরাহ করেছে। বৈশাখী তার এলাকার ২০ জন শিশুকে বিনাবেতনে পড়িয়েছে; যাতে তারা বিদ্যালয় থেকে ঝরে না পড়ে।

রংপুর সিটি করপোরেশনের মেয়র মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা বলেন, সিটি করপোরেশনের মেয়রের মতো চ্যালেঞ্জিং পদে নেতৃত্ব বিকাশের জন্য মেয়েদের এগিয়ে আসতে হবে। মেয়রের পদটি একটি চ্যালেঞ্জিং পদ। কারণ আমাদের বহুবিধ বিষয় নিয়ে কাজ করতে হয়। নেতৃত্ব, জ্ঞান এবং ধৈর্য এ তিনটি গুণ কারও লক্ষ্যে পৌঁছতে খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন- সিটি কর্পোরেশনের প্যানেল মেয়র ও কাউন্সিলর মাহমুদুর রহমান টিটু, প্ল্যান ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশের ভারপ্রাপ্ত ডিভিশনাল ম্যানেজার ডা. হৃষিকেশ সরকার, ইউএনডিপি টাউন ম্যানেজার মো. মোবারক হোসেনসহ সাংবাদিক, কিশোর-কিশোরী, অভিভাবক এবং বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি সংস্থার কর্মকর্তারা।